বিনামূল্যে ওয়ার্ডপ্রেস এ খুলি নিজের ওয়েবসাইট !পাঠের সময় : 6 মিনিট

কে না চায় নিজের একটি ব্যক্তিগত পোর্টফোলিও সাইট থাকুক অনলাইনে।আবার অনেকেই চায় ওয়ার্ডপ্রেসে হোক তার প্রথম হাতেখড়ি।কিন্তু সমস্যা বাঁধে হোস্টিং আর ডোমেইন কেনায়।অনেকেই খুঁজতে থাকেন ফ্রিতে যদি সম্ভব হত ওয়ার্ডপ্রেসে একটি সাইট বানানো। আজ আমরা শিখবো কিভাবে সম্পুর্ন ফ্রিতে বানিয়ে ফেলবেন আপনার প্রথম ওয়েবসাইট।

অনেকেই মনে করে ওয়েবসাইট বানাতে কোডিং জ্ঞানের প্রয়োজন কিন্তু আজ আমরা এই পদ্ধতিতে ওয়েবসাইট বানিয়ে দেখাবো জেটিতে কোন ধরনের কঠিন জ্ঞানের প্রয়োজন নেই। এই টিউটোরিয়াল শেষে আপনি সম্পূর্ণ বিনামূল্যে আপনার নিজের একটি ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন, তাও ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করার মাধ্যমে।এক্ষেত্রে কোনো ধরনের কোডিং জ্ঞান এর প্রয়োজন নেই।

ওয়ার্ডপ্রেস কিঃ

ওয়ার্ডপ্রেস হল জনপ্রিয় ওয়েবসাইট বিল্ডার। দুনিয়ার ৮০% ওয়েবসাইট ওয়ার্ডপ্রেস এর মাধ্যমে চলে।এর শক্তিশালী বেকএন্ড এর কারণে এটি এতোটা জনপ্রিয়।আমাজন, আলীএক্সপ্রেস, টেসলা ইত্যাদির মতো বড় বড় শক্তিশালী কোম্পানি ওয়ার্ডপ্রেস কে তাদের ওয়েবসাইটে  ব্যাক এন্ড হিসেবে ব্যবহার করে ।ড্রাগ এন্ড ড্রপ পদ্ধতিতে ওয়েবসাইট বানানো যায় বলে ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট ইউজারদের মাঝে এত জনপ্রিয়। এছাড়াও গতানুগতিক ওয়েবসাইট বিল্ডার এর বদলে এখানে অনেক ধরনের প্রয়োজনীয় প্লাগিন ব্যবহার করা যায় বিধায় ওয়ার্ডপ্রেস অন্যান্য ওয়েবসাইট বিল্ডার তুলনায় শতগুণে এগিয়ে রয়েছে।

 ফ্রিতে ডোমেইন কেনাঃ

শুরুতে জেনে নেই ডোমেইন কি। ডোমেইন হলো আপনার ওয়েবসাইট এর ঠিকানা বা নাম। উদাহরনঃ www.apple.com , www.google.com, www.theurbanbangla.com । ডোমেইন মূলত প্রত্যেকটি ওয়েবসাইটের জন্য আলাদা আলাদা ইউনিক নাম। যেটি ফোন নাম্বারের মত শুধু আপনার ওয়েবসাইটের জন্য একটি মাত্র এড্রেস ধারণ করে। সাধারণত ডোমেইন নাম কিনতে ডোমেইন নাম  সরবরাহকারী কোম্পানির কাছে কিছু মূল্য পরিশোধ করতে হয়। কিন্তু যেহেতু আমরা একটি ফ্রি ডোমেইন ব্যবহার করতে চাচ্ছি  সেহেতু আমরা ফ্রী ডোমেইন সরবরাহ করে এমন একটি  কোম্পানির সহযোগিতা গ্রহণ করব। 

তাই প্রথমেই চলে যান www.freenom.com এই ওয়েবসাইটে। জিমেইল দিয়ে রেজিস্টার করে সার্চ করুন আপনার পছন্দের ডোমেইন।তারপর এড টু কার্ট এ যেয়ে নাম ঠিকানা দিয়ে কিনে ফেলুন ফ্রি ডোমেইন নেইম। কিন্তু ফ্রি বলে আপনাকে পেতে হবে – .ml , .tk , .cf এক্সটেন্সান এর ডোমেইন। .com কিনতে পে করতে হবে চার্জ। ফ্রি তে .ml , .tk , .cf এর ডোমেইন পেতে দিতে হবে না কোনো ক্রেডিট কার্ড এর তথ্য।সম্পুর্ন ঝামেলা ছাড়াই কিনে নিতে পারবেন আপনার ডোমেইনটি।আমাদের এই ফ্রি ডোমেইন ১ বছর পর্যন্ত কাজ করবে। এক বছর পর সেটাকে আবার রিনিউ করতে হবে। freenom.com থেকে খুব সহজেই আমরা এভাবে ফ্রী ডোমেইন কিনতে  পারি। আর এর ফলে আমরা ফ্রি ডোমেইন ব্যবহার করার মাধ্যমে আমাদের সাইট বানাতে পারব এবং শিক্ষার্থীরা ওয়েবসাইট ইউজ করে সাইট বানানো করতে পারবে। ডোমেইন কেনা হয়ে গেলে আমরা আমাদের হোস্টিং কোম্পানি থেকে ফ্রিতে হোস্টিং কেনার চেষ্টা  করব। ফ্রিতে হোস্টিং কেনার পর আমরা ডোমেইন-হোষ্টিং কে একই সাথে সংযুক্ত করার মাধ্যমে আমাদের প্রজেক্ট করার কাজে এগিয়ে যাব।

 ফ্রিতে হোস্টিং কেনাঃ

এবার আমরা জানবো হোস্টিং সম্পর্কে।হোস্টিং হলো আপনার ওয়েবসাইটটি রাখার জন্য ব্যবহার করা মেমোরি  স্পেস।হোস্টিং এর মেমোরিযুক্ত কম্পিউটারটি ২৪ ঘন্টাই সচল থাকে , তাই ইউজার আপনার ওয়েবসাইটে যেকোনো সময় ঢুকতে পারে। আমরা নিজেদের কম্পিউটার  হোস্টিং কম্পিউটার  হিসেবে ব্যবহার  করতে পারি কিন্তু সমস্যা আমাদের কম্পিউটার দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা সচল থাকে না।  তাই যেকোনো সময় ইউজাররা চাইলেই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে পারে না। তাই আমরা হোস্টিং কোম্পানি থেকে হোস্টিং কম্পিউটার  স্পেস কিনে থাকি। সাধারণত মূল্য পরিশোধের মাধ্যমে এই হোস্টিং কোম্পানি গুলো থেকে ক্রয় করতে হয়। কিন্তু আজ  আমরা দেখবো কিভাবে বিনামূল্যে আমরা ফ্রি হোস্টিং ব্যবহার করতে পারি। এর জন্য আমরা ইউজ করব infinityfree.com। 

ফ্রিতে হোস্টিং পেতে চলে যান https://infinityfree.net এ । আবারো জিমেইল  দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে চলে  যান ফ্রি হোস্টিং অপশান এ।নিউ একাউন্ট এ ক্লিক করে দিয়ে দিন আপনার ডোমেইন নামটি – যেটি আপনি কিনেছিলেন freenom.com থেকে।

 নেমসার্ভারঃ

নেম সার্ভার হচ্ছে একটি হোস্টিং এর চাবির মতো। আপনি যদি কোন হোস্টিং সার্ভার বা নেম সার্ভার এর নাম আপনার ক্রয় করা ডোমেইনে ইউজ করেন তাহলে উক্ত ডোমেইনটি আপনার ওই হোস্টিং এর সাথে কাজ করা শুরু করবে। তাই নেম সার্ভার ডোমেইন নেম এর সাথে যুক্ত করা খুবই জরুরী একটি  প্রক্রিয়া। 

চলে যান আবারো www.freenom.com এ আপনার ক্লায়েন্ট এরিয়ায়।ক্লিক করুন মেনেজ ডোমেইন এ।ক্লিক করুন নেমসার্ভার এ।তারপর সেখানে সেট করুন https://infinityfree.net এর নামেসার্ভার (NS1.EPIZY.COM,   NS2.EPIZY.COM )।২৪ থেকে ৭২ ঘন্টার মধ্যে আপনার ডোমেইনটি হোস্টিং এর সাথে যুক্ত হয়ে যাবে।

 ওয়ার্ডপ্রেস ইন্সটলঃ

প্রথমেই চলে যান আপনার https://infinityfree.net এর ড্যাসবোর্ড এ। ক্লিক করুন কন্ট্রোল প্যানেল অপশন এ।এটি আপনাকে নিয়ে যাবে আপনার সি প্যানেল এ।নিচের দিকে পেয়ে যাবেন softculus installer নামের একটি অ্যাপ।ক্লিক করেই পাবেন ওয়ার্ডপ্রেস এর অপশন।ইন্সটল করে নিন ওয়ার্ডপ্রেস।

তারপর সেখান থেকে আপনি পেয়ে যাবেন আপনার ওয়ার্ডপ্রেস এর কন্ট্রোল প্যানেল এর লিঙ্ক।লিঙ্ক এ ঢুকলেই পেয়ে যাবেন ওয়ার্ডপ্রেস এর ড্যাসবোর্ড।

ওয়ার্ডপ্রেসের ড্যাসবোর্ড আপনি অনেক ধরনের অপশন পেয়ে যাবেন। ওয়ার্ডপ্রেসের back-end খুবই শক্তিশালী হওয়ায় খুব সহজেই ওয়েবসাইট গুলো নিয়ন্ত্রণ এবং তৈরি করা যায় এই ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ড ইউজ করে। ওয়ার্ডপ্রেস ড্যাশবোর্ড এর সাথে পরিচিত হতে আপনাকে শুধুমাত্র বামপাশের অপশনগুলো দিকে তাকালেই  হবে।  মূল অপশনগুলো প্রধানত বামপাশে অবস্থান করে ।আমাদের এই বামপাশের অপশন গুলো ব্যবহার করে ওয়ার্ডপ্রেসে একটি ভালো থিম বিল্ডার ইন্সটল করতে হবে যার মাধ্যমে আমরা   থিম টি তৈরি করতে পারব আমাদের ওয়েবসাইটের জন্য। পরবর্তীতে আমরা শিখব কোন ধরনের থিম ফ্রিতে ইনস্টল করার মাধ্যমে এবং কোন ধরনের থিম ইনস্টলার বাছাই করার মাধ্যমে আমরা সহজেই আমাদের ওয়েবসাইটের জন্য থিম বানাতে পারি কোন কোডিং জ্ঞান ছাড়াই। 

 থিম ইন্সটলঃ

আমাদের প্রথমেই করতে হবে থিম ইন্সটল।সেটি করার জন্য আমাদের যেতে হবে Appearance অপশন এ।সেখান থেকে সিলেক্ট করুন থিম অপশনটি । ক্লিক করুন “এড নিউ থিম” এ।তারপর সার্চ বারে টাইপ করুন Elementor Starter। ইন্সটল করে আক্টিভেট করুন।

 প্লাগিন ইন্সটলঃ

চলে যান প্লাগিন অপশন এ।এড নিউ প্লাগিন এ ক্লিক করে সার্চ করুন Elementor theme builder । ইন্সটল করে আকটিভেট করুন।আমরা আমাদের ওয়েবসাইটের থিম বিল্ডার হিসেবে এই Elementor theme builder ইউজ করব।এলিমেন্টর থিম বিল্ডার একটি জনপ্রিয় এবং ফ্রী থীম বিল্ডার ওয়ার্ডপ্রেসের জন্য। এই  বিল্ডার ইউজ করার মাধ্যমে খুব সহজ পদ্ধতিতে থিম বিল্ড করা যায় । মজার ব্যাপার এই থিম বিল্ডার টি সম্পূর্ণ ফ্রি।

আমাদের  থিম বিল্ডার এর সাথে একটি ভালো ইলিমেন্ট প্লাগিন  দরকার। কারণ এলিমেন্ট  প্লাগিন থেকে  এলিমেন্ট নিয়ে আমরা সহজেই আমাদের থিম ইউজ করতে পারবো। এক্ষেত্রে আমরা ব্যবহার করব ইভান্ট এলিমেন্ট।তাই আমরা আবারও চলে যাব প্লাগিন অপশনে।তারপর আমরা আবার সার্চ অপশন এ গিয়ে সার্চ করব Evanto element । ইন্সটল করে আক্টিভেট করব।এই প্লাগিনটি আমরা ইউজ করব ওয়েবসাইটের জন্য থিম বা ব্লক সিলেক্ট করতে।

 এলিমেন্টর এর কাজঃ

এখন আমরা শুরু করব এলিমেন্টর দিয়ে থিম বানানোর কাজ।প্রথমেই আমরা একটি নতুন পেজ ক্রিয়েট করব।এর জন্য আমরা যাব পেজ অপশন এ । এড নিউ পেজ এ ক্লিক করলেই আমাদের নতুন পেজটি ক্রিয়েট হয়ে যাবে।তারপর আমরা উপরে থাকা “ইডিট উইথ ইলিমেন্টর” এই বাটনে ক্লিক করব।আমাদের সামনে ওপেন হয়ে যাবে ইলিমেন্টরের ইডিট পেজ।এখানে আমরা নিজেদের মত করে ড্রেগ এন্ড ড্রপ করে আমাদের ওয়েবসাইট বানাতে পারব।কিন্তু সবচেয়ে সহজ উপায়টি আপনাদের শিখিয়ে দেব।

 নিচেই দেখতে পাবেন সবুজ এভান্টো এলিমেন্ট এর লোগো।তাতে ক্লিক করলেই পেয়ে যাবেন অনেক অনেক টেমপ্লেট।যা দিয়ে ইম্পোর্ট করে আপনি বানাতে পারবেন আপনার পছন্দের সব ওয়েবসাইট।  এই এলিমেন্ট প্লাগিনে রয়েছে অনেক ধরনের টেমপ্লেট এবং ব্লক। এগুলো আপনারা ফ্রিতে ব্যবহার করতে  পারব।

 তারপর পাবলিশ বাটনে ক্লিক করলেই পাবলিশ হয়ে যাবে আপনার ওয়েবসাইটটি।

হোমপেজ বানানোঃ

চলে যান ওয়ার্ডপ্রেস এর সেটিংস অপশন এ ।ক্লিক করুন রিডিং এ। সেখান থেকে সিলেক্ট করুন “Static page” আর সাথে সিলেক্ট করুন আপনার পেজ এর নাম।ব্যস হয়ে গেলো আপনার হোম পেজ তৈরি।

আর এভাবেই আপনি সহজেই বানাতে পারেন আপনার পছন্দের ওয়েবসাইট খুব সহজে এবং বিনামূল্যে। বিনামূল্যে এই ওয়েবসাইট বানানোর পদ্ধতি তে খুবই উপকারী আমাদের শিক্ষার্থীদের জন্য যারা সহজে ওয়ার্ডপ্রেস বিল্ডিং শিখতে চাই। এছাড়াও খুবই উপকারী তাদের জন্য যারা চাইছেন সম্পূর্ণ বিনামূল্যে নিজের একটি ওয়েবসাইট  বানাতে। আশা করি এভাবে পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করলে আপনি সহজেই বিনামূল্যে তৈরি করতে পারবেন নিজের একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট। আর তাতে দরকার হবেনা কোন ধরনের  কোডিং  জ্ঞান। শুধুমাত্র ড্রাগ এন্ড ড্রপ পদ্ধতিতে আপনি তৈরি করতে পারবেন আপনার নিজের একটি পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট। এছাড়াও বিভিন্ন ধরনের প্লাগিন     ব্যবহারের মাধ্যমে ওয়ার্ডপ্রেসে আপনি তৈরি করে ফেলতে পারবেন নিজস্ব কোম্পানির ওয়েবসাইট অথবা একটি ই-কমার্স সাইটও। 

ব্রেকিং নিউজ